45% ছাড় !

ইমামে আযম আবূ হানীফা রহ.

৳ 160.00 ৳ 88.00

ইমাম আবূ হানীফা রহ. ছিলেন, খুব দানশীল ও উদার। তিনি কোনো সম্পদ পেলে তা আল্লাহর রাস্তায় দান করে দিতেন। কোনো সময় এমনও হত যে, নিজের জন্য কোনো কিছুই অবশিষ্ট থাকত না। একবার কয়েকজন হাজী তাঁকে বেশ কয়েক জোড়া জুতা হাদিয়া দিলেন। এর কিছুদিন পর তিনি জুতা কিনতে গেলে মানুষ বলাবলি করতে লাগল, আপনার সেইসব জুতা কী হল? তিনি বললেন, এক জোড়া জুতাও অবশিষ্ট নেই, সব ছাত্রদের দিয়ে দিয়েছি। (আখবারু আবী হানীফা ও সাহেবাইহি, পৃ. ৫০)
ইমাম আবূ হানীফা রহ. ছিলেন, ইলম ও হিকমতে সমকালীন ব্যক্তিদের মাঝে সর্বশ্রেষ্ঠ। তাঁর বুদ্ধিমত্তা, উপস্থিত বুদ্ধি ও তাৎক্ষণিক জবাব প্রদানের বিরল যোগ্যতা ছিল সর্বজনস্বীকৃত। তাঁর অসংখ্য হিকমতপূর্ণ কথা উল্লেখ রয়েছে বিভিন্ন কিতাবে। তাঁর কিছু হিকমতপূর্ণ কথা নিম্নরূপ:
১. উলামায়ে কিরামের জীবন ও কর্মের আলোচনা এবং তাঁদের মজলিসে হাজির হওয়া আমার মতে অনেক ফেকহী আলোচনার চাইতে উত্তম। কারণ তাদের বাণী ও মজলিসগুলোই প্রকাশ করে তাঁদের আখলাক ও স্বভাব, তাঁদের রুচি ও বৈশিষ্ট্য।
২. কোনো গুরুত্বপূর্ণ কাজ ফেলে রেখে খানা খাবে না। কেননা খানা মানুষের বিবেককে অলস করে দেয়।
৩. যে ব্যক্তি সম্মান, মর্যাদা ও নেতৃত্ব তলব করবে, জীবনভর সে থাকবে লাঞ্ছিত।
৪. যে ব্যক্তি দুনিয়া অর্জনের উদ্দেশ্যে দীনি ইলম শিক্ষা করবে, সে ইলমের বরকত থেকে বঞ্চিত হবে । আর ইলম তার অন্তরে স্থির হবে না, আর না তা দ্বারা সে উপকৃত হতে পারবে।
৫. যে ব্যক্তি শুধু হাদীস পড়তে চায় ফেকাহ ছাড়া, সে ঐ ঔষধ বিক্রেতার ন্যায় যে কেবল অন্ধের মতো ঔষধ বিক্রি করে, কোন্ ঔষধ কী কাজ করে তা বলতে পারে না। যেটা আসলে চিকিৎসকের কাজ। ঔষধ নির্বাচনের কাজে বিক্রেতা যেমন চিকিৎসকের মুখাপেক্ষী, একইভাবে একজন মুহাদ্দিস ফকীহের মুখাপেক্ষী।
৬. কোনো মহিলা যখন মজলিস থেকে উঠে যায়, তার উষ্ণতা বিদ্যমান থাকা পর্যন্ত সেই স্থানে বসবে না।
৭. যদি আলিম-উলামা আল্লাহর প্রিয়পাত্র না হন, তাহলে আর কে আল্লাহর প্রিয়পাত্র হবে?
৮. শুরুতে আমি গুনাহ ত্যাগ করেছি মানুষের ভয়ে। আর এখন তা পরিণত হয়েছে আমার দীন ও ঈমানে।
৯. কিয়ামতের ময়দানে যখন আমাকে আল্লাহ তাআলার সন্মুখে দাঁড়াতে হবে, তখন হযরত আলী রাযি. ও হযরত মুআবিয়া রাযি.-এর পারস্পারিক এখতেলাফ সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হবে না। বরং আমাকে জিজ্ঞাসা করা হবে শুধু এটাই যে, আমি আল্লাহর আদেশ-নিষেধ মেনেছি কিনা।
অতএব আমার উচিৎ সেই জিজ্ঞাসার বিষয় নিয়েই ব্যস্ত থাকা।
১০. সবচেয়ে বড় ইবাদত হল আল্লাহর প্রতি ঈমান আনা। আর সবচেয়ে বড় পাপ হল কুফরী করা।

লেখক

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “ইমামে আযম আবূ হানীফা রহ.”