আমরা ইসলাম মানি....কিন্তু

লেখক মুফতী সাঈদ আহমাদ হাফিজাহুল্লাহ

অনুবাদক আব্দুল্লাহ আল মামুন

প্রকাশক মাকতাবতুল হাবীব

পৃষ্ঠা সংখ্যা ৯৬

মুদ্রিত মুল্য ৳ ১৬০.০০

ছাড়ে মুল্য ৳ ৯৬.০০(-40% Off)

রেটিং

ক্যাটাগরি দাওয়াত-তাবলীগ, আলোচনা ও ওয়াজ

তাহরীফ বা বিকৃতি কি জিনিস?
তাহরীফ বা বিকৃতি প্রসঙ্গে হযরত শাহ্ ওয়ালিউল্লাহ রহ.-এর ব্যাখ্যা-
আল ফাউযুল কাবীর গ্রন্থের মধ্যে অর্থবোধক তাহরীফ বা বিকৃতি প্রসঙ্গে তিনি লিখেন-
অনুবাদ: আর অর্থগত তাহরীফ বা বিকৃতি হলো অপব্যাখ্যার নাম। অর্থাৎ গোয়ার্তুমি এবং আঁটসাঁট করে সরল পথ থেকে সরে আয়াতকে তার আসল মর্মের বিপরীতে দাঁড় করানো। [শরহে ফাউযুল কাবীর পৃ: ৫৫]
এখন প্রশ্ন হচ্ছে, সত্যিই কি আমাদের ভাইয়েরা কুরআনুল কারীমের আয়াতসমূহের কোনো অপব্যাখ্যা বা তাহরীফ করছে কিনা? তাদের কথায় আয়াতসমূহের অর্থ বিকৃতি কিংবা মনগড়া ব্যাখ্যা পাওয়া যায় কিনা? 
এ ব্যাপারে আমরা আমাদের তাবলীগি ভাইদের আলোচনা বা বয়ানে পেশ করা কিছু উদ্ধৃতি উপস্থাপন করবো। পাশাপাশি আমরা কুরআনুল কারীমে এসব বিষয় সম্পর্কিত আয়াত সমূহের সঠিক মর্ম বা অনুবাদ তুলে ধরার প্রয়াস চালাবো ইনশাআল্লাহ।

তাবলীগি ভাইদের উক্তি এবং কুরআনুল কারীমের আয়াতসমূহ:
১. তাবলীগি ভাইদের উক্তিঃ আমাদের নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম যোদ্ধা বা জিহাদি ছিলেন না।
কুরআনের আয়াত- فَقَاتِلْ فِي سَبِيلِ اللَّهِ 
“(হে নবী) আপনি আল্লাহর পথে যুদ্ধ করুন।” [সুরা আন-নিসা, আয়াত- ৮৪]
২. তাবলীগি ভাইদের উক্তিঃ লড়াই, সংগ্রাম করা নবীদের কাজ না। 
কুরআনের আয়াত- وَكَأَيِّن مِّن نَّبِيٍّ قَاتَلَ
“বহু নবী আল্লাহর পথে লড়াই সংগ্রাম করেছেন।” [সুরা আল ইমরান: ১৪৬]
৩. তাবলীগি ভাইদের উক্তিঃ আমাদের নবীর মেহনত দ্বারা সাহাবা রা. কাফেরদের জন্য বড়ই নরমদিল হয়ে গিয়েছিলেন। 
কুরআনের আয়াত- مُّحَمَّدٌ رَّسُولُ اللَّهِ وَالَّذِينَ مَعَهُ أَشِدَّاءُ عَلَى الْكُفَّارِ
“মুহাম্মাদ আল্লাহর রাসুল, এবং তার সঙ্গীরা কাফেরদের ব্যাপারে কঠোর।” [সুরা ফাতহ- ২৯]
৪. তাবলীগি ভাইদের উক্তিঃ এক একটি করে কাফেরদের যে কেউ জাহান্নামে যাবে তার ব্যাপারে পুরো উম্মতকে জবাবদিহি করা হবে। 
কুরআনের আয়াত- وَلَا تُسْأَلُ عَنْ أَصْحَابِ الْجَحِيمِ
“হে নবী, জাহান্নামীদের ব্যাপারে আপনাকে জবাবদিহি করা হবে না।” [সুরা আল বাকারা: ১১৯]
৫. তাবলীগি ভাইদের উক্তিঃ আমাদের নবী কখনো আক্রমণাত্মক জিহাদ করেননি। 
কুরআনের আয়াত: قَاتِلُوا الَّذِينَ لَا يُؤْمِنُونَ بِاللَّهِ وَلَا بِالْيَوْمِ الْآخِرِ
“যুদ্ধ করো তাদের বিরুদ্ধে, যারা আল্লাহর প্রতি ঈমান আনেনি, আখেরাতের প্রতি ঈমান আনেনি।” [সুরা তাওবা: ২৯]
৬. তাবলীগি ভাইদের উক্তিঃ আমাদের নবী কখনো শক্তি ব্যবহার করেননি। 
কুরআনের আয়াত- يَا أَيُّهَا النَّبِيُّ جَاهِدِ الْكُفَّارَ وَالْمُنَافِقِينَ وَاغْلُظْ عَلَيْهِمْ 
“হে নবী, কাফের এবং মুনাফিকদের সাথে লড়াই করুন, এবং তাদের প্রতি কঠোরতা করুন।” [সুরা আত তাহরীম : ৯]
৭. তাবলীগি ভাইদের উক্তিঃ আমাদের নবী সা. প্রতিশোধ গ্রহণকারী ছিলেন না। 
কুরআনের আয়াত- يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا كُتِبَ عَلَيْكُمُ الْقِصَاصُ فِي الْقَتْلَى
“প্রতিশোধ গ্রহণ করা তোমাদের ওপর ফরজ করে দিয়েছেন।” [সুরা বাকারা: ১৭৮] 
৮. তাবলীগি ভাইদের উক্তিঃ এটি বড় জিহাদ। প্রথমে এদের সাথে লড়াই করো, এই নফস এবং শয়তানই আমাদের শত্রু। আর কোনো শত্রু নেই। 
কুরআনের আয়াত- إِنَّ الْكَافِرِينَ كَانُوا لَكُمْ عَدُوًّا مُّبِينًا
“নিশ্চয় কাফেররা তোমাদের প্রকাশ্য শত্রু।” [সুরা নিসা: ১০১] 
৯. তাবলীগি ভাইদের উক্তিঃ কাফেরদেরকে মারলে তো এই বেচারারা জাহান্নামে চলে যাবে। 
কুরআনে আয়াত- فَاضْرِبُوا فَوْقَ الْأَعْنَاقِ
“তোমরা মারো কাফেরদের ঘাড়ের ওপর।” [সুরা আনফাল: ১২]
১০. তাবলীগি ভাইদের উক্তিঃ যদি এসব কাফেররা তোমাদের সাথে যুদ্ধ করে, তাহলে কালিমাওয়ালাগুলির দ্বারা চিকিৎসা করো। যাতে তারাও জান্নাতে যেতে পারে, তোমরাও। 
কুরআনের আয়াত: فَإِن قَاتَلُوكُمْ فَاقْتُلُوهُمْ كَذَلِكَ جَزَاءُ الْكَافِرِينَ 
“যদি এসব কাফের তোমাদের সাথে যুদ্ধ করে, তাহলে তাদেরকে হত্যা করে দাও, এটিই কাফেরদের শাস্তি।” [সুরা বাকারা: ১৯১]
১১. তাবলীগি ভাইদের উক্তিঃ আমরা কেন যুদ্ধ করবো তাদের জন্য যাদের ওপর আল্লাহ তায়ালার শাস্তি এসেছে তাদের গুণাহের কারণে? 
কুরআনের আয়াত: 
وَمَا لَكُمْ لَا تُقَاتِلُونَ فِي سَبِيلِ اللَّهِ وَالْمُسْتَضْعَفِينَ مِنَ الرِّجَالِ وَالنِّسَاءِ وَالْوِلْدَانِ الَّذِينَ يَقُولُونَ رَبَّنَا أَخْرِجْنَا مِنْ هَذِهِ الْقَرْيَةِ الظَّالِمِ أَهْلُهَا وَاجْعَل لَّنَا مِن لَّدُنكَ وَلِيًّا وَاجْعَل لَّنَا مِن لَّدُنكَ نَصِيرًا
“তোমাদের কি হলো যে, তোমরা আল্লাহর রাহে লড়াই করছ না দুর্বল সেই পুরুষ, নারী ও শিশুদের পক্ষে, যারা বলে- হে আমাদের পালনকর্তা! আমাদিগকে এই জনপদ থেকে নিষ্কৃতি দান কর, এখানকার অধিবাসীরা যে, অত্যাচারী! আর তোমার পক্ষ থেকে আমাদের জন্য পক্ষাবলম্বনকারী নির্ধারণ করে দাও এবং তোমার পক্ষ থেকে আমাদের জন্য সাহায্যকারী নির্ধারণ করে দাও।” [সুরা নিসা- ৭৫]
১২. তাবলীগি ভাইদের উক্তি: আল্লাহ যখন চাইবেন কাফেরদেরকে নিজ কুদরতের দ্বারা শাস্তি দিবেন। তার কাজের মধ্যে আমাদের হস্তক্ষেপ করা উচিত নয়। 
কুরআনের আয়াত: قَاتِلُوهُمْ يُعَذِّبْهُمُ اللَّهُ بِأَيْدِيكُمْ
“যুদ্ধ করো ওদের সাথে। এবার আল্লাহ তাদেরকে তোমাদের হাতে শাস্তি দিবেন।” [সুরা তাওবা- ১৪]
১৩. তাবলীগি ভাইদের উক্তিঃ যদি তোমরা এসব কাজের দাওয়াত ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যে বের না হও, তাহলে আল্লাহ তোমাদেরকে যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি দিবেন। 
কুরআনের আয়াত- إِلَّا تَنفِرُوا يُعَذِّبْكُمْ عَذَابًا أَلِيمًا
“যদি তোমরা (জিহাদের জন্য) বের না হও, তাহলে আল্লাহ তোমাদেরকে যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি দিবেন।” [সুরা তাওবা: ৩৯]
১৪. তাবলীগি ভাইদের উক্তিঃ জিহাদের পূর্বে ঈমান বানাতে হয়। আর এই ঈমান বানানোর কাজ আমাদের ভয়ে ভয়ে করতে হবে, এবং করতে করতেই মরতে হবে। 
কুরআনের আয়াত: الَّذِينَ آمَنُوا يُقَاتِلُونَ فِي سَبِيلِ اللَّهِ
“ঈমানদারগণ তো আল্লাহর পথে যুদ্ধ করে...।” [সুরা নিসা: ৭৬]

এমন আরো অসংখ্য প্রমাণ নিয়ে আসছে বইটি।

আপনি লগড ইন নাই, দয়া করে লগ ইন করুন

এই বিষয়ে অন্যান্য বই