নবীদের পুণ্যভূমিতে

লেখক মুফতী মুহাম্মদ রফী উসমানী

অনুবাদক ফখরুল ইসলাম

প্রকাশক মাকতাবাতুল আযহার

পৃষ্ঠা সংখ্যা ২২৪

মুদ্রিত মুল্য ৳ ২৪০.০০

ছাড়ে মুল্য ৳ ১৪৪.০০(-40% Off)

রেটিং

ক্যাটাগরি ইসলাম প্রসঙ্গ , নানাদেশ ও ভ্রমণ

লেখক সম্পর্কে: পাকিস্তানের একজন প্রখ্যাত ইসলামী ব্যক্তিত্ব। তিনি পকিস্তানের প্রাক্তন গ্রান্ড মুফতি, দারুল উলুম করাচীর প্রতিষ্ঠাতা মুহাম্মদ শফী উসমানী (র.) এর সন্তান। বর্তমানে তিনি পাকিস্তানের গ্রান্ড মুফতি এবং পাকিস্তানের সবচেয়ে বড় বিদ্যাপিঠ দারুল উলুম করাচীর সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি বিখ্যাত দুই ইসলামী ব্যক্তিত্ব মুফতি মুহাম্মাদ তাকী উসমানী এবং মাওলানা ওয়ালী রাজীর ভাই। ফিকহ্, ফতওয়া, অর্থনীতিসহ বিভিন্ন প্রয়োজনীয় বিষয়ে অসংখ্য বই রচনা করেছেন। দীনি প্রয়োজনে প্রায় পঞ্চাশটি দেশ সফর করেছেন। বেশ কয়েকবার বাংলাদেশেও আগমন করেছেন।

অনুবাদক: মুফতি রাইহান খাইরুল্লাহ একজন জনপ্রিয় অনলাইন এক্টিভিস্ট, তরুণ আলেম, সুলেখক, অনুবাদক। তিনি “জামিয়া দারুল উলুম নুরিয়া মাদরাসা”, মধ্যবাড্ডায় শিক্ষকতা করছেন। তাঁর অনূদিত বইয়ের সংখ্যা চারটি। নবীদের পুণ্যভূমিতে তাঁর দ্বিতীয় অনুবাদ গ্রন্থ। অনুবাদের দক্ষতার জন্য কেউ কেউ তাঁকে আমাদের “অনুবাদ সম্পদ” নামে আখ্যায়িত করেছেন।

সংক্ষিপ্ত পরিচিতি:
জর্দান, সিরিয়া ও সৌদি আরবের সফরনামার সংকলন বইটি। বইটি শুধু সফরনামাই নয় বরং তথ্যবহুল ও গবেষণামূলক একটি পুস্তক যেখানে রয়েছে ইতিহাস, সীরাত ও আল কুরআনের বিস্ময়কর ঘটনার বিবরণ, বিশ্লেষণ এবং তাহকীক।

বই পর্যালোচনা:
বইটি লেখক অর্পণ করেছেন তাঁর মাকে। নিচের শব্দগুলো অবশ্যই আপনার হৃদয়ে দাগ কাটবে। একটু পড়েই দেখুন:
‘অর্পণ-
প্রিয় আম্মুকে-
যিনি আমার জন্যে সবচেয়ে বেশি কষ্ট করেছেন এবং যাঁকে আমি সবচেয়ে বেশি কষ্ট দিয়েছি। আল্লাহ তায়ালা তাঁকে উভয় জাহানে সুখে-শান্তিতে রাখুন। আমীন।’
প্রথম দেখায় প্রেমে পড়ার জন্য এর চেয়ে সুন্দর শব্দ আর কী বা হতে পারে। অনুবাদকের অভিব্যক্তিতে তিনি তিন পৃষ্ঠার একটি সারগর্ভ ভূমিকা লিখেন, যেখানে মুফতী রফী উসমানী এর সাথে তাঁর সাক্ষাৎ এবং দোয়া নেয়া সম্পর্কিত ঘটনা উল্লেখ আছে। ভূমিকাতে তিনি পাঠকদের দোয়া আদায় করার প্রচেষ্টা করেছেন, যা আমরা সচরাচর আদীব হুজুরের লেখায় দেখি। বইটির প্রচ্ছদ প্রথম দেখাতেই আমার অনেক পছন্দ হয়েছিলো। রুচিশীল পাঠকদেরকে প্রচ্ছদটি অবশ্যই আকর্ষিত করবে। বইটির প্রচ্ছদের শেষ পাতায় মূল লেখকের দোয়া এবং অনুমতিপত্র অঙ্কন করে দেয়া হয়েছে, যা আমার চোখে দেখা এবারই প্রথম। বিষয়টি বইয়ের প্রচ্ছদের মাঝে নতুনত্ব এনেছে। আরেকটা বিষয় একটু ব্যতিক্রম, সেটা হলো বইটির শেষের দিকে সফরে উল্লেখিত বিশেষ স্থানগুলোর বেশ কিছু চিত্র যোগ করা হয়েছে। ভূমিকাতে লেখক তাঁর বিভিন্ন সফরের সংক্ষিপ্ত স্মৃতি উল্লেখ করেন। সফরের আমল আলোচনার মাধ্যমে বইটি শুরু হয়েছে। কুরআন হাদীসের ভাণ্ডার থেকে সফরের আমলগুলো সংকলিত করা হয়েছে। এ থেকে যে কোন পাঠক ব্যক্তিগতভাবে উপকৃত হতে পারবেন। কুরআন, হাদীস এবং ইতিহাসে বর্ণিত পুণ্যভূমি এবং ঐতিহাসিক স্থান, যেমন: আসহাবে কাহ্ফের গুহা, মূতা, ইয়ারমুক, তাবুক, মাদয়ান , মৃত সাগর, শ্বেত মিনার, বাইতুল মুকাদ্দাস, কওমে আদ, কওমে সামুদ, মক্কা, মদীনাসহ বিভিন্ন স্থানগুলো তিনি স্বচক্ষে দেখেছেন এবং এ বিষয়ে কুরআন হাদীসের আলোচনা, ঐতিহাসিক মতামত, গবেষণা, পরিপূর্ণ তাহকীক, ফিকাহের গুরুত্বপূর্ণ মাসআলাসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয় অবতারণা করে তথ্য-উপাত্তের মাধ্যমে তা বিশ্লেষণ করেছেন। উদাহরণ স্বরূপ যখন আসহাবে কাহ্ফের গুহার বর্ণনায় লেখক এসেছেন তখন প্রথমেই এটা যাচাই করেছেন আসলেই এটা কী আসহাবে কাহাফের গুহা? তারপরে কুরআন হাদীসের আলোকে আসহাবে কাহ্ফের বর্ণনা, পর্যায়ক্রমে আসহাবে কাহ্ফের কুকুর, কুকুর পালনের মাসআলা, আসহাবে কাহ্ফের ঘুমের পর্যালোচনা, তাদের হেফাজত কীভাবে হলো সেটার বিষ্ময়কর বিশ্লেষণ, কুরআনে বর্ণিত আসহাবে কাহ্ফের ঘুমের সময়ের হিসাব, তাঁদের ঘুম থেকে জাগরণ, এত সময় ঘুমে থাকার ব্যাখ্যা, গুহার বর্তমান অবস্থা মোটকথা তিনি পুরো বিষয়টি পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে আলোচনা করেছেন। বইটিতে ডুব দিয়ে উল্লেখিত তিন দেশের বিভিন্ন স্মৃতি, এই দেশগুলোর সংস্কৃতি এবং জীবন যাপনের সংক্ষিপ্ত চিত্র পাঠকের চোখে ভেসে উঠবে। আরেকটি বিষয় বিশেষভাবে উল্লেখ্য যে, কুরআন-হাদীসের উৎস ছাড়াও অনুবাদক কিছু বইয়ের নাম এবং অন্যান্য প্রয়োজনীয় কিছু বিষয় টিকায় যুক্ত করেছেন। পরিশেষে শাইখ রফী উসমানীর একটি জ্ঞানগর্ভ সাক্ষাৎকার পরিবেশনের মধ্য দিয়ে বইটি সমাপ্ত করা হয়েছে।

আপনি লগড ইন নাই, দয়া করে লগ ইন করুন

এই বিষয়ে অন্যান্য বই